৪৮৪ মিনিট আগের আপডেট; দিন ৯:২২; রবিবার ; ১৩ জুন ২০২১

চকরিয়ায় বহু মামলার আসামী ‘বেলাল’ আত্মগোপনে

নিজস্ব প্রতিবেদক ১২ মে ২০২১, ২২:৩৬

চকরিয়ায় চাঁদাবাজি, নারী ও শিশু নির্যাতন দমনসহ চারটি মামলার পলাতক আসামী বেলাল হোছাইনকে এখনো গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। তাঁকে গ্রেপ্তার করতে পুলিশ একাধিকবার অভিযান চালালেও এলাকা ছাড়া হওয়ায় গ্রেপ্তার হয়নি। তবে চকরিয়ার পার্শ্ববর্তী এক এলাকায় অবস্থান করায় পুলিশ তাকে খুঁজে পাচ্ছে না। 

বেলাল উপজেলার কাকারা ইউনিয়নের এসএমচর গ্রামের বাসিন্দা। তাঁর বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন, চাঁদাবাজি, মারামারিসহ চারটি মামলা রয়েছে।

মামলা এজাহার ও নথিপত্র সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬সালের ১০সেপ্টেম্বর বেলাল হোছাইনের বিরুদ্ধে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযান কক্সবাজার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতে নালিশী অভিযোগ দায়ের করেন। পরে অভিযোগটি পর্যালোচনা করে মামলা হিসেবে গ্রহণ করে। যার মামলা নম্বর ১১২৯। ২০২০সালের ২ফ্রেরুয়ারি আরেক মহিলা ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ তুলে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-কক্সবাজার আদালতে আরেকটি মামলা দায়ের করে। মামলা দুইটি এখনো আদালতে বিচারাধীন।

মামলার এজাহার সূত্রে আরও জানা যায়, ২০২০সালের ১৯ নভেম্বর ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন নামে এক ব্যক্তিকে মারধার ও হত্যা চেষ্টার অভিযোগে বেলাল হোছাইনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। এর আগে চাঁদাবাজির অভিযোগেও তাঁর বিরুদ্ধে চকরিয়া সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আরো একটি মামলা রয়েছে। এরপর থেকে আত্মগোপনে চলে যান বেলাল হোছাইন।

মামলার বাদী বলেন, ‘বেলাল হোছাইন এলাকার একজন চিহ্নিত খারাপ লোক। তাঁর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ আছে। ধর্ষণ মামলার করার পর এখনো অধরা রয়েছে। দুইটি ধর্ষণসহ একাধিক মামলা থাকলেও কেউই ব্যবস্থা নিচ্ছে না। কিভাবে অসংখ্য অপরাধ করে পার পেয়ে যাচ্ছে সেটাই এখন বড় প্রশ্ন বলে প্রশ্ন তুলে বাদী।’

চাঁদাবাজি ও মারধর মামলার বাদী গিয়াস উদ্দিন বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে বেলাল হোছাইন বিভিন্ন অপরাধে মামলার আসামী হলেও গ্রেপ্তার হয়নি। নারী কেলেঙ্কারির হোতার হিসেবে সেই এলাকায় পরিচিত। তাকে দ্রুত আাইনের আওতার দাবি জানাচ্ছি।’

চকরিয়া ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের বলেন, ‘মামলার আসামির অবস্থান নিশ্চিত গ্রেপ্তার করতে অভিযান চালানো হবে। অতিদ্রুতই তাকে গ্রেপ্তার করা হবে।’


সর্বমোট পাঠক সংখ্যা : ৩৬৬